দুধ খাওয়ার পর কি খাওয়া নিষেধ জেনে নিন, নইলে হতে পারে বড় বিপদ!

দুধ খাওয়ার পর কি খাওয়া নিষেধ জানুন

অনেকেই জানেন না দুধ খাওয়ার পর কি খাওয়া নিষেধ। আর তাই আমরা আপনাদের এই বিষয়ে জানার সুবিধার্থে এই আর্টিকেলটি নিয়ে হাজির হলাম।

দুধকে সুষম খাবার বলা হয়। এক গ্লাস দুধে শরীরের জন্য উপকারী প্রতিটি পুষ্টি উপাদান রয়েছে। স্বাস্থ্যকর খাবার বলে যে সব খাবারের সাথে দুধ খাওয়া যাবে, কিন্তু ব্যাপারটা মোটেও তা নয়।

এক নজরে জানুন ‘দুধ খাওয়ার পর কি খাওয়া নিষেধ’

এমন কিছু খাবার আছে, যার সঙ্গে দুধ মেশানো শরীরের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। জেনে নিন কিছু খাবার, যা দুধের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে পেট খারাপ বা বদহজম হতে পারে। তাই দুধ খাওয়ার দুই ঘণ্টার মধ্যে এসব খাবার না খাওয়াই ভালো।

আরও পড়ুনঃ  কিভাবে তাড়াতাড়ি লম্বা হওয়া যায় | ৬ ফুট লম্বা হওয়ার উপায়

টক জাতীয় ফল

দুধ খাওয়ার পর টক ফল যেমন কমলা বা আঙুর খাওয়া এড়িয়ে চলুন। এই ফলগুলিতে সাইট্রিক অ্যাসিড এবং ভিটামিন সি রয়েছে যা দুধের সাথে মিশে অম্লতা সৃষ্টি করতে পারে। দুধ হজম হতে কিছুটা সময় লাগে। এ সময় টক ফল থেকে দূরে থাকাই ভালো। এ ছাড়া টক ও দুধের মিশ্রণে গ্যাস ও বুকজ্বালার মতো শারীরিক সমস্যা হতে পারে। তাই এই নিয়ম মেনে চলুন ভালো থাকবেন।

মাছ ও মাংস

পুষ্টিকর খাবারের তালিকায় দুধের পরেই থাকবে মাছ ও মাংসের নাম। প্রাণীজ আমিষের ক্ষেত্রে মাছ ও মাংসের সমন্বয়ে ওজন করা হয়। তবে এই দুই ধরনের মাংস একসঙ্গে খেলে পেট খারাপ হতে পারে। বিশেষ করে যখন পশুর মাংসের সাথে দুধ মেশানো হয়, তখন পেট ফাঁপা হওয়ার মতো ঘটনা ঘটতে পারে বুক জ্বালাপোড়ার কারণ।

আরও পড়ুনঃ  টনসিল হলে কি কি সমস্যা হয় জানা জরুরি | টনসিল হলে কি কি খাওয়া যাবে না

মসলাযুক্ত ভারী খাবার

মসলাযুক্ত খাবার শরীরকে গরম করে। মসলাযুক্ত ভারী খাবার দুধের সঙ্গে মিশে শরীরে অস্বস্তি তৈরি করতে পারে। বদহজমের সমস্যা শুরু হতে পারে এই খাবার থেকে।

দই

দইয়ের সৃষ্টি দুধ থেকে হলেও খাওয়ার সময় দুধ খেয়ে দই খাওয়া যাবে না। বা ভাইস ভার্সা। দুধ ও দই একত্রে না খাওয়াই ভালো, বিশেষ করে টক দই। এতে পেট খারাপের বেশ ভালো আশঙ্কা থাকে।

পেঁয়াজ

দুধ খাওয়ার পর কাঁচা পেঁয়াজ খাবেন না। এতে শরীরে চুলকানির আশঙ্কা থাকে।

মুলা

পুষ্টিগুণে ভরপুর মুলা শীতে অনেকেরই প্রিয়। তবে দুধের পর মুলা খাওয়া উচিত নয়। একইভাবে মূলা খাওয়ার দুই ঘণ্টার মধ্যে দুধ খাওয়া ঠিক নয়। মুলা শরীর গরম করতে সাহায্য করে। দুধে মূলা মিশিয়ে খেলে পেট খারাপ হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ  কোন জায়গায় গেলে মানসিক শান্তি পাওয়া যাবে | মানসিক শান্তির ওষুধ

ঝালজাতীয় খাবার

মশলাদার খাবার পেটে অ্যাসিডিটি বাড়ায়। দুধের সাথে মিলিত হয়ে এটি খাদ্যনালীতে প্রবেশ করে এবং পেটে জ্বালা ও ব্যথার উপদ্রোব বাড়ায়।

জানতে হলে পড়ুন

About the Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like these

Share via
Copy link