মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে বা থাকলে সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি?

মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে বা থাকলে সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি

বন্ধুরা অনের স্বপ্ন মেডিকেলে পড়ার। আর তাই আপনাদের সুবিধার জন্য আমরা আজকের এই পোষ্টটি সুন্দরভাবে সাজিয়েছি। কিভাবে আপনি খুব সহজে মেডিকেলে ভর্তি হতে পারবেন এছাড়া মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে বামেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে বা থাকলে সুযোগ পাওয়ার সম্ভাবনা বেশি তা নিয়ে এই আর্টিকেলে আলোচনা করা হয়েছে। এই আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত যাবতীয় বিষয়গুলি জানতে পারবেন। এই দেশে ৮০ শতাংশ ছাত্র-ছাত্রী মেডিকেলে পড়ার স্বপ্ন দেখে থাকে। তারা অনেকেই ছোট বেলায় কেউ প্রশ্ন করলে বলতঃ বড় হয়ে ডাক্তার হবে। কিন্তু সময়ের স্রোতে সেসব মত বা বিষয়গুলি আমাদের থেকে হারিয়ে যায়। যাইহোক চলুন কথা না বাড়িয়ে মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে তা আমরা জেনে নেই এই পোষ্ট থেকে।

মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে?

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য, ২০২১-২২ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের SSC এবং HSC পরীক্ষায় ন্যূনতম ৯.০০ নাম্বার অর্জন করতে হবে। আপনার নাম্বার এই মানের নিচে হলে, আপনি আবেদন করতে পারবেন না। কিন্তু বিশেষ উপলক্ষে, পাহাড়ি এলাকার সকল উপজাতিকে কমপক্ষে ৪.০০ পয়েন্ট পেতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশের সবচেয়ে ছোট জেলা কোনটা | বাংলাদেশের সবচেয়ে ছোট জেলার নাম কি
মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে
মেডিকেলে পড়ার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে তা এই ইমেজের বিষয়

প্রাইভেট মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য বায়োলজিতে কত পয়েন্ট লাগবে?

মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য জীববিজ্ঞানে ৩.৫০ বা তার বেশি জিপিএ প্রয়োজন। একই পদ্ধতি উপজাতিদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। উপজাতি ও পার্বত্য এলাকার ছাত্রদের অবশ্যই জীববিজ্ঞানে ৩.৫০ নম্বর পেতে হবে। অন্যথায় আপনার অনুরোধ গ্রহণ করা হবে না।

এখন প্রশ্ন হচ্ছে: বিদেশে অবস্থানরত বাংলাদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য কি বিশেষ নিয়ম আছে? সংক্ষিপ্ত উত্তর হল না। শিক্ষার্থী বাংলাদেশে বা বাংলাদেশের বাইরে যাই হোক না কেন সবার জন্য একই নিয়ম প্রযোজ্য।

সেকেন্ড টাইম মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে?

আপনি যদি ১ম ধাপে এ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা দিতে অক্ষম হন তাহলে দ্বিতীয় মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য ন্যূনতম ৯.০০ জিপিএ প্রয়োজন। এছাড়াও উপজাতীয় বা পাহাড়ি এলাকার ক্ষেত্রে পূর্ববর্তী পয়েন্ট 8.০০। এখন আপনারা অনেকেই ভাবছেন দ্বিতীয় মেডিকেল পরীক্ষা থেকে কত পয়েন্ট কাটা হবে।

এই ক্ষেত্রে, উত্তর হল: দ্বিতীয় প্রবেশিকা পরীক্ষা থেকে ৫ পয়েন্ট কাটা হবে। তবে, কেউ যদি মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পায় এবং দ্বিতীয়বার সরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য আবেদন করে, তাহলে তার থেকে ৭.৫ পয়েন্ট কাটা হবে।

সেকেন্ড টাইম মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে
সেকেন্ড টাইম মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য কত পয়েন্ট লাগবে তা জানিয়েছি

পরবর্তী প্রশ্নঃ মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা কয়টি?

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষা ১০০ পয়েন্ট নিয়ে গঠিত। তবে এইচএসসি এবং এসএসসি গড় থেকে ২০০ নম্বর কাটা হবে। এর মানে হল মেডিকেল লাইসেন্সিং পরীক্ষা মোট ৩০০ পয়েন্টের সাথে পাস করা হয়েছে।

কিভাবে পয়েন্ট হিসাব করা হয় মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় জিপিএ?

চলুন দেখে নেওয়া যাক মেডিসিনে কিভাবে জিপিএ হিসাব করা হয়। HSC GPA স্কোরকে ২৫ দিয়ে এবং SSC স্কোরকে ১৫ দিয়ে গুণ করুন। তারপর আপনি একসাথে দুটি নাম্বার সংগ্রহ করে পয়েন্ট অর্জন করতে পারেন। উদাহরণ: যদি একজন ব্যক্তি SSC তে ৫.০০ GPA এবং HSC তে ৫.০০ GPA অর্জন করে, তাহলে তার স্কোর কী হবে?

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশে বিভাগ কয়টি কি কি | বাংলাদেশে বিভাগ কয়টি

এসএসসি জিপিএ: ৫ x ১৫=৭৫ এর জন্য

এইচএসসির জন্য: ৫ x ২৫ = ১২৫

উভয় ক্ষেত্রে যোগ করে  (৭৫+১২৫=২০০) যোগ করলে মোট ২০০ পয়েন্ট পাওয়া যায়। এর মানে আপনি আপনার জিপিএতে ২০০ পয়েন্ট পর্যন্ত পয়েন্ট পেতে পারেন।

মেডিকেলে চান্স পেতে কত নম্বর লাগে

অনেক লোক জানতে চায় মেডিকেলে চান্স পাবার জন্য কত স্কোর প্রয়োজন বা রাষ্ট্রীয় মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার জন্য কত পয়েন্ট প্রয়োজন। মেডিকেল স্কুলে ভর্তি হতে আপনার কত পয়েন্ট লাগবে তা বলা খুব কঠিন, তবে আবেদন করার জন্য আপনার অবশ্যই কমপক্ষে ৯.০০ এর সামগ্রিক জিপিএ থাকতে হবে।

কিন্তু ১০.০০ পয়েন্ট না থাকলে চান্স পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম। ২০০ পয়েন্টের গড় পয়েন্ট এবং ১০০ পয়েন্টের লিখিত পরীক্ষা থেকে, মোট ৩০০ পয়েন্ট।কারো গড় ২৭০ হলে, তারা এখানে সুযোগ পাওয়ার আশা করতে পারে। তবে প্রতি বছর বিভিন্ন নিয়মে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ঢাকা মেডিকেলে চান্স পাওয়ার জন্য আপনার স্কোর ২৮৫ থেকে ২৯৫ হলে, আপনি চান্স পাওয়ার আশা করতে পারেন।

মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত কিছু বিষয়

যদি আপনার জীবনের লক্ষ্য হয় মেডিকেল কলেজে যাওয়া আপনার যতটা সম্ভব ভালোভাবে প্রতিবাদ করতে হবে। মেডিকেল স্কুলে ভর্তি হতে আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে। এই দেশের প্রায় ৭০% শিক্ষার্থী মেডিকেল স্কুলে ভর্তির জন্য ভর্তি পরীক্ষা দেয়। এর মানে হল আপনাকে কয়েক হাজার অর্থাৎ ৩-৪০০০ শিক্ষার্থীর মধ্যে শীর্ষতে থাকতে হবে। তাহলে বুঝবেন এটা কতটা কঠিন। আপনি চাইলে বাংলাদেশের পপুলার প্রথম আলোর উক্ত পোষ্টটি পড়তে পারেন।

আরও পড়ুনঃ  শ্রাদ্ধকর্মে কাকের গুরুত্ব কি? কাককে কেনো খাবার দেওয়া হয়?

কিন্তু সমস্যা কাটিয়ে ওঠা মানুষের কাজ। বাংলাদেশের প্রাইভেট এবং পাবলিক মেডিকেল কলেজের প্রবেশিকা পরীক্ষায় ৯ পয়েন্টের প্রয়োজন। ধৈর্য ধরুন এবং আপনার ভবিষ্যত গড়তে পড়ুন। তবে নিজের ক্যারিয়ারকে সমৃদ্ধ করতে চাইলে অন্য ক্যারিয়ার খারাপ নয়।

মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত কিছু বিষয়
মেডিকেলে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রান্ত কিছু বিষয় জেনে নিন উপরে

আমার শেষ কথা

প্রিয় পাঠক, আজকের আর্টিকেলে আপনি জেনেছেন মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার জন্য কত নম্বরের বা পয়েন্টের প্রয়োজন এছাড়াও আপনাকে মেডিকেল প্রবেশিকা পরীক্ষা সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য এই আর্টিকেলে দেওয়া হয়েছে। আমি আশা করি আপনি আজকের আর্টিকেল থেকে আপনার প্রশ্নের উত্তর পেয়েছেন।

বাংলাদেশ সরকারী মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে কত নম্বরের প্রয়োজন? আমরা আপনার সব প্রশ্নের উত্তর দিতে সক্ষম হয়েছি। মেডিকেল মেধা সর্বোচ্চ গ্রেড এবং বাংলাদেশে মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য কত পয়েন্ট পাওয়া লাগবে তার বিস্তারিত তথ্য দেওয়া আছে। আপনার যদি এই বিষয়ে অন্য কোন প্রশ্ন বা মতামত থাকে, তাহলে আমাদের কমেন্ট করুন।

আমাদের অন্যান্য হেল্পফুল কনটেন্ট>>>
  1. জানুন বাংলাদেশের ৩০ তম গ্যাসক্ষেত্র সম্পর্কে বিস্তারিত
  2. বাংলাদেশে বিভাগ কয়টি কি কি | বাংলাদেশে বিভাগ কয়টি
  3. প্রধানমন্ত্রীর কাছে আর্থিক সাহায্যের আবেদন করে কিভাবে?

FAQs

No schema found.

About the Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like these

Share via
Copy link