Republic of Molossia : যে দেশে কুকুর নাগরিকত্ব পায়, সে এক মানবিক দেশ।

Republic of Molossia এর ইতিহাস

Republic of Molossia : পৃথিবীতে এমন একটি দেশ আছে যেখানে শুধু মানুষ নয়, কুকুরকেও নাগরিকত্ব দেওয়া হয়। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। এ দেশে কুকুররাও মানুষের মতো সমান অধিকার ভোগ করে। অনেকের কাছে অদ্ভুত মনে হলেও, মোলোসিয়া রিপাবলিক (Republic of Molossia) নামে একটি দেশে এমন একটি নিয়ম রয়েছে।

যে দেশে কুকুর নাগরিকত্ব পায়

এটি আমেরিকার মধ্যে অবস্থিত একটি ক্ষুদ্র নেশান। এটি কেভিনবার্গ নামে তার শাসকের অধীনে রাজ্বটি পরিচালিত হচ্ছে। তিনি সর্বদা সামরিক ইউনিফর্মে থাকেন এবং তার কাছ থেকে পদক ঝুলানো থাকে। তিনি নিজেকে অনেক উপাধিতে ভূষিত করেছেন।

প্রতি বছর বহু পর্যটক এই দেশে বেড়াতে আসেন। এই ছোট স্বঘোষিত ১১ একরের দেশটি নেভাদা রাজ্যে অবস্থিত। এর জনসংখ্যা মাত্র ৩৮ জন। এটি জাতিসংঘের স্বীকৃত রাষ্ট্র নয়। কিন্তু স্বীকৃতি না পেলে কী হবে? যেখানে অনেক তথাকথিত উন্নত দেশ পশু অধিকার নিয়ে তেমন সোচ্চার নয়, সেখানে পশুদের নাগরিকত্ব দিয়ে নজির স্থাপন করেছে ছোট্ট এই দেশটি।

আরও পড়ুনঃ  জেনে নিন ৭ই মার্চের ভাষণের বিষয়বস্তু কয়টি ছিল

Republic of Molossia এর ইতিহাস

Republic of Molossia এর ইতিহাস
Republic of Molossia এর ইতিহাস

মোলোসিয়াতে বসবাসকারী দুই ব্যক্তি প্রথমে একটি নতুন দেশ তৈরির কথা ভেবেছিলেন। সেই দুই ব্যক্তির একজন কেভিনবার্গ এবং তার বন্ধু। তারা আমেরিকা থেকে আলাদা একটি নতুন দেশ তৈরি করেছে। প্রথমে মোলোসিয়া একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র ছিল। কিন্তু কেভিন বার্গ যখন ১৯৯৫ সালে সিংহাসনে আরোহণ করেন, তিনি একটি সামরিক একনায়কত্ব দেশ ঘোষণা করেন। তিনি দেশে স্বৈরশাসক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। কেভিনের স্ত্রী মোলোসিয়ার ফার্স্ট লেডির মর্যাদা পেয়েছেন। এই দেশে বসবাসকারী বেশিরভাগ নাগরিক কেভিনের আত্মীয় বলে মনে করা হয়। যদিও বিশ্বের অন্য কোনো সরকার এ দেশকে স্বীকৃতি দেয়নি। কিন্তু অন্যান্য দেশের মতো এই দেশেও দোকান, লাইব্রেরি, শ্মশানের মতো যাবতীয় সবই আছে। তাছাড়া এই দেশের নিজস্ব মুদ্রাও রয়েছে। এর নিজস্ব আইনি ঐতিহ্য রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ  বাংলাদেশের বিজয় দিবস কবে এবং ১৬ ডিসেম্বর ২০২৩ কততম বিজয় দিবস?

মোলোসিয়ার ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, দেশটির মোট জনসংখ্যা ৩৮ জন, যার মধ্যে ৩টি কুকুর রয়েছে যাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হয়েছে। বাকি ৩৫ জনের মধ্যে মাত্র ৩ জন কেভিনবার্গ, তার স্ত্রী ও মেয়ে বসবাস করছেন। মোলোসিয়া একটি পর্যটন কেন্দ্র হিসেবেও পরিচিত। প্রতি বছর বিভিন্ন স্থান থেকে পর্যটকরা এখানে বেড়াতে আসেন। এখানে ভ্রমণের জন্য পর্যটকদের পাসপোর্ট স্ট্যাম্প নিতে হয়। এটাই এখানে সরকারি নিয়ম। আমেরিকা থেকে এই দেশে পৌঁছাতে সময় লাগে মাত্র ২ ঘন্টা। এই দেশের রাষ্ট্রপতি অর্থাৎ কেভিনকে পর্যটকদের সঙ্গে দেশের বিভিন্ন ভবন ও রাস্তায় দেখা যায়।

উপসংহার

কেভিন নিজ দেশের উন্নয়নে অনেক কিছু করেছেন। এই দেশের নিজস্ব মুদ্রাও আছে যার নাম “ভ্যালোরা“। ব্যাংকগুলোর নিজস্ব মুদ্রাও রয়েছে। এখানে যাওয়ার জন্য পাসপোর্টের প্রয়োজন নেই। তবে অনুমতি ছাড়া এখানে তিন ঘণ্টার বেশি থাকা যাবে না। আশ্চর্যজনকভাবে, ছোট আকারের সত্ত্বেও, দেশটির একটি সংগ্রামের ইতিহাস রয়েছে। মোলোসিয়া আরেকটি ক্ষুদ্র জাতি মোস্তা-চেস্তানের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে জয়ী হয়। দেশটি এখন পর্যন্ত দুবার তার জাতীয় সঙ্গীত পরিবর্তন করেছে এবং এর পতাকার রঙ নীল, সাদা এবং সবুজ।

আরও পড়ুনঃ  জেনে নিন স্কলারশিপ কিভাবে পাওয়া যায় - বিদেশে স্কলারশিপ পাওয়ার যোগ্যতা

About the Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like these

Share via
Copy link