ধূমপানের ক্ষতি কমায় মেয়েদের হাতের থাপ্পড়, খেয়ে নিন এঝনি!

ধূমপানের ক্ষতি কমায় মেয়েদের হাতের থাপ্পড়

অতিথিরা পয়সা খরচ করে রেস্তোরাঁয় এসে মেয়েদের কোমল হাতের থাপ্পড় খায়। এমনই অদ্ভুত ঘটনা ঘটেছে জাপানের নাগোয়া শহরে অবস্থিত ‘সাচি হো কো ইয়া‘ নামের একটি রেস্তোরাঁয়। সেখানে প্রবেশ করলেই দেখতে পাবেন ভেতরে সারি সারি চেয়ার। অতিথিরা এসে চেয়ারে বসে এবং মেয়ে ওয়েটার এসে অতিথিদের গালে চড় মেরে দেয়। উল্টো অতিথিকে বিদায় না দিয়ে ধন্যবাদ জানিয়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছেন। কিন্তু এই থাপ্পড় কোনো অপরাধে করা হচ্ছে না, বরং মোটা অঙ্কের টাকা খরচ করে মেয়ে ওয়েটারদের এই নরম চড় খেতে এসেছে কাস্টমাররা।

সেই রেস্তোরাঁর মেনু কার্ডে বিভিন্ন খাবারের তালিকা রয়েছে। সেই খাবারের তালিকার সাথে “নাগোয়া লেডিস স্লাপ” লেখা আছে। যারা থাপ্পর খেতে চান তাদের মেনু থেকে বেছে নিয়ে অর্ডার করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  Smoking Habit Effect: ধূমপান করলে আইকিউ কতটুকু কমে? যা বলছেন গবেষকরা

কত টাকা খরচ করতে হবে থাপ্পড় খাবার জন্য?

কত টাকা খরচ করতে হবে থাপ্পড় খাবার জন্য
কত টাকা খরচ করতে হবে থাপ্পড় খাবার জন্য

মেয়েদের হাতের এই লোভনীয় চড় খেতে হলে আপনাকে গুনতে হবে প্রায় 300 EN যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩৫০ টাকা। আপনি যদি এই রেস্তোরাঁয় আসেন এবং মাত্র 300 ইয়েন খরচ করেন, যে কেউ সারা দিন নারীদের থাপ্পড় খেতে পারেন। আবার যে মেয়েটি রেস্টুরেন্টের মালিক সে যদি ওয়েটারদের পছন্দের কারো কোমল হাতের থাপ্পড় খেতে চায়, তাহলে তাকে বাড়তি টাকা খরচ করতে হবে। যেটা 300 ইয়েনের পরিবর্তে অতিরিক্ত 500 ইয়েন দিতে হবে।

মেয়েদের হাতের থাপ্পড়ের উপকারিতা

থাপ্পড় খাওয়ার জন্য এত টাকা খরচ করা অনেকের কাছে অযৌক্তিক মনে হতে পারে। কিন্তু বিভিন্ন কারণে অনেকেই এখানে চড় খেতে আসে। মূলত, রেস্তোরাঁর মেয়ে ওয়েটাররা বিশেষ ভঙ্গিতে নরম হাতে অতিথির গালে চড় মারে। ফলস্বরূপ, থাপ্পড় খাওয়া অতিথি তার সারা শরীরে একটি শিহরণ সংবেদন নিয়ে জেগে ওঠে। কেউ কেউ এই থাপ্পড়ের মধ্যে পিনিক খুঁজে পায়।

আরও পড়ুনঃ  কিভাবে তাড়াতাড়ি লম্বা হওয়া যায় | ৬ ফুট লম্বা হওয়ার উপায়

তাই কেউ কেউ পিনিক নিতে ধূমপান ছেড়ে দিয়ে টাকা খরচ করে এই রেস্টুরেন্টে এসে মেয়েদের চড় মারেন। ধূমপান করলে একদিকে যেমন টাকার ক্ষতি হয় অন্যদিকে শরীরের ক্ষতি হয়। রেস্তোরাঁয় এসে মেয়েদের হাত থাপ্পড় দিলেও টাকা খরচ করলেও স্বাস্থ্যঝুঁকি নেই। তাই ধূমপানের চেয়ে এখানে এসে চড় খাওয়া অনেক সস্তা এবং স্বাস্থ্যকর।

জাপানি রেস্তোরাঁগুলি বিদেশিদের পাশাপাশি জাপানিরাও পরিদর্শন করে। এটি বিদেশী পর্যটকদের জন্য খুবই আকর্ষণীয়। রেস্তোরাঁর মেয়েরা যত জোরে থাপ্পড় মেরেছে, অতিথিরা ততই আনন্দ উপভোগ করেছেন।

উপসংহার

থাপ্পড় মারার পরে অনেকেই সতেজ এবং আরও উদ্যমী বোধ করেন। কেউ কেউ চড় মারার জন্য ওয়েটারকে ধন্যবাদও জানিয়েছেন। যারা এই রেস্তোরাঁর থাপ্পড় খাবার কথা ভাবছেন তাদের জন্য দুঃসংবাদ, রেস্টুরেন্টটি আর খোলা নেই। এই স্ল্যাপিং পরিষেবাটি ২০১২ সালে সাচি হোকো ইয়া দ্বারা চালু করা হয়েছিল। তিনি খুব জনপ্রিয় হয়ে ওঠেন। এ সময় রেস্টুরেন্টে থাপ্পড় খেতে লোকজন ভিড় করত। শুরুতে একজন মহিলা চড় মারার কাজ করতেন,পরে জনপ্রিয়তা বাড়ার সাথে সাথে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ আরও কয়েকজন তরুণীকে নিয়োগ দেয়। রেস্তোরাঁয় চড় মারার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়ার পর ব্যাপক সমালোচনা হয়। পরে রেস্তোরাঁ কর্তৃপক্ষ এই আয়োজন বন্ধ করতে বাধ্য হয়। অন্যান্য তথ্য পড়ুন আমাদের Homepage visit করে। এছাড়াও যুক্ত থাকুন আমাদের সোসাল মিডিয়ায়।

আরও পড়ুনঃ  টনসিল হলে কি কি সমস্যা হয় জানা জরুরি | টনসিল হলে কি কি খাওয়া যাবে না

About the Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like these

Share via
Copy link