কম্পিউটার টিপস এন্ড ট্রিকস : রিস্টার্ট নাকি শাটডাউন করবেন?

কম্পিউটার টিপস এন্ড ট্রিকস

কম্পিউটার টিপস এন্ড ট্রিকসঃ কম্পিউটারকে সুস্থ রাখার জন্য রিস্টার্ট বা শাট-ডাউন সম্পর্কে জানা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। Microsoft Windows থেকে MacOS পর্যন্ত প্রায় সমস্ত কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম, ব্যবহারকারীদের কম্পিউটার বন্ধ করার দুটি বিকল্প দিয়ে থাকে, রিস্টার্ট (Restart) এবং শাট ডাউন (Shut Down)।

কম্পিউটার ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন সময়ে রিস্টার্ট এবং শাটডাউন ব্যবহার করে। কিন্তু অনেকেই এই দুটি ফাংশনের মধ্যে পার্থক্য জানেন না। যদিও একজন নতুন ব্যবহারকারীর পক্ষে এই বাটনগুলির মধ্যে পার্থক্য করা কঠিন হতে পারে, কারণ একজন রেগুলার ব্যবহারকারী জানেন যে শাটডাউন কম্পিউটার সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে দেয়, তবে রিস্টার্ট করার অর্থ হল শাটডাউনের সাথে সাথে কম্পিউটার পুনরায় চালু হয়।

কম্পিউটার টিপস এন্ড ট্রিকস

কিন্তু আপনাকে বুঝতে হবে কোনটি আপনার কম্পিউটারের জন্য ভালো। তার আগে জেনে নিন দুটির মধ্যে পার্থক্য।

আরও পড়ুনঃ  Phishing link: যেভাবে চিনবেন হ্যাকারদের বানানো ফিশিং লিংক, না চিনলেই বিপদ!

Shut Down

Windows 8 এবং 10 ডেভেলপ করার আগে, শাটডাউন এবং রিস্টার্ট একই ফাংশন সম্পাদন করত। অর্থাৎ, তারা উভয়ই প্রোগ্রাম বন্ধ করতে ব্যবহৃত হয়েছিল। “ফাস্ট স্টার্টআপ” নামে পরিচিত উইন্ডোজ ৮ এবং ১০-এ একটি নতুন ফিচারের প্রবর্তন এটিকে পরিবর্তন করেছে।

এটি একটি কম্পিউটার চালু করার দীর্ঘ প্রক্রিয়াকে বাধা দেয়। উইন্ডোজ ১০-এর সঙ্গে ফাস্ট স্টার্টআপ ইউজারদের ওপেন করা সমস্ত ফাইল এবং উইন্ডো বন্ধ করা সহজ করে দিয়েছে। এটি উইন্ডোজ কার্নেল নামে পরিচিত, যা অপরিহার্য অপারেটিং সিস্টেমটিকে সম্পূর্ণরূপে বন্ধ করে না।

Restart

রিস্টার্ট কম্পিউটার সিস্টেমকে সাময়িকভাবে বন্ধ করে দেয় এবং তারপরে আবার চালু করে। এটি র‍্যাম এবং প্রসেসর ক্যাশে পরিষ্কার করে। রিস্টার্ট তার কার্নেল সহ কম্পিউটার সম্পূর্ণভাবে বন্ধ করার জন্য পরিচিত। এই প্রভাবে কম্পিউটার আবার চালু হলে সব পরিষ্কার হয়ে যাওয়ার বিষয়ে আত্মবিশ্বাসী হওয়া যায়। তবে এটি করতে আরও বেশি সময় লাগে।

Shut Down ও Restart কোনটি কখন করবেন?

Shut Down ও Restart
Shut Down ও Restart

১) যদি কোনো আপডেট বা সফটওয়্যার ইনস্টল করার সময় রিস্টার্ট করার পরামর্শ দেওয়া হয়। কেউ যদি সফলভাবে একটি আপডেট শেষ করতে চান, তবে তাকে রিস্টার্ট অপশন চালু করার বাটন প্রয়োগ করতে হবে।

আরও পড়ুনঃ  ২০২৩ সালে সবচেয়ে বেশি ব্যাবহৃত Password, আপনার পাসওয়ার্ড লিক হয়নি তো? জেনে নিন!

যখন কম্পিউটারের সঙ্গে কিছু ত্রুটি ঘটে এবং নেটওয়ার্ক স্থির না থাকলে কত ঘন ঘন ইউজাররা রিস্টার্ট অপশন ব্যবহার করা যায়, সেই বিষয়ে অনেকেই জানেন না। আইটি বিশেষজ্ঞরা পরামর্শ দেন যে, কম্পিউটার ব্যবহারকারীদের অন্তত প্রতি দুই থেকে তিন দিনে তাদের কম্পিউটার রিস্টার্ট করা উচিত।

এটি উইন্ডোগুলিকে ফাইলগুলো পরিষ্কার করতে, টেম্প ফাইলগুলো বাতিল করতে এবং নিজেদের আপডেট করতে সক্ষম করে৷ এটি করার সারমর্ম হলো, নিশ্চিত করা যে পি.সি.র ক্যাশে থেকে মুছে ফেলা সব ফাইল একটি সম্ভাব্য নিরাপত্তা হুমকির কারণ হতে যাচ্ছে না।

২) কেউ যদি কম্পিউটারের ব্যাটারি লাইফ সম্পর্কে উদ্বিগ্ন হন, তাহলে একটি শাট ডাউন করা বাঞ্ছনীয়। এটি বিদ্যুৎ ব্যবহারের জন্য আদর্শ এবং ব্যাটারির জীবনকালকে দীর্ঘায়িত করে।

আরও পড়ুনঃ  কম্পিউটারের প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার | Required Software For PC

৩) শাট ডাউন নিরাপত্তার জন্য ভালো। নিজেদের কম্পিউটার বন্ধ করার মানে হল যে, সিস্টেমটি একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য অফলাইন আছে। যখন এটি এই অবস্থায় থাকে, হ্যাকারদের পক্ষে এটিকে পরিচালনা করা চ্যালেঞ্জিং হয়ে ওঠে। এছাড়াও যখন সিস্টেমটি বন্ধ হয়ে যায়, এটি দূষিত বিষয়বস্তু দ্বারা সংক্রামিত হলে এটি একটি নির্দিষ্ট কমান্ডের সঙ্গে যোগাযোগ করে না।

উপসংহার

আশা করি কিভাবে কম্পিউটারকে ভালো অবস্থায় রাখতে হয় তা শিখেছেন। উপরে পয়েন্ট আকারে বলা হয়েছে এই পয়েন্টগুলো কম্পিউটারকে ভালো অবস্থায় রাখতে খুবই প্রয়োজন। আর্টিকেলটি ভালো লাগলে কমেন্ট ও শেয়ার করে অন্যকে জানাতে পারেন। নিবন্ধটি পড়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ। অন্যান্য কনটেন্টগুলি আমাদের ওয়েবসাইটে পড়তে পারেন। এছাড়া আমাদের Facebook গ্রুপে যুক্ত থাকার আহবান হইলো।

About the Author

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You may also like these

Share via
Copy link